1. mumin.2780@gmail.com : admin : Muminul Islam
  2. Amenulislam41@gmail.com : Amenul :
  3. rajubdmmail01@gmail.com : A Haque Raju : A Haque Raju
  4. smking63568@gmail.com : S.M Alamgir Hossain : S.M Alamgir Hossain
ধলই চা বাগানের শ্রমিকদের পাশে দাড়ালো মনু-ধলই ভ্যালী - আলোরদেশ২৪

ধলই চা বাগানের শ্রমিকদের পাশে দাড়ালো মনু-ধলই ভ্যালী

  • প্রকাশিত : রবিবার, ৯ আগস্ট, ২০২০
  • ৪৩১ বার দেখা হয়েছে



কমলগঞ্জ (মৌলভীবাজার) প্রতিনিধিঃ মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জের ধলই চা বাগানটি হঠাৎ করে ২৭শে জুলাই সন্ধ্যার সময় বন্ধ করে কর্তৃপক্ষ।
আজ দীর্ঘ ১৩ দিন যাবত ধলই চা বাগান বন্ধ আছে। এতে ধলই চা বাগানের শ্রমিক ও তাদের পরিবারে আর্থিক সহায়তা দানে মনু-ধলই ভ্যালীর ২৩টি চা বাগানের শ্রমিকেরা নিজেদের মজুরী কিছু টাকা দিয়ে সহায়তা প্রদানে সিদ্ধান্ত গ্রহন করা হয় । এই বিষয় নিয়ে সভাপতি, সম্পাদক, চা শ্রমকি ইউনিয়নের নেতৃবৃন্দ ও গন্যমান্য ব্যক্তিদের উপস্থিতিতে আজ ৯ই আগস্ট রোজ রবিবার সকাল ১১টায় অনুষ্ঠিত এক মতবিনিময় সভায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

এবিষয়ে মনু-ধলই ভ্যালীর কার্যকরি কমিটির সভাপতি ধনা বাউরীর সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক নির্মল দাশ পাইনকার সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত মতবিনিময় সভায় অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, বাংলাদেশ চা শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক নির্মল দাশ পাইনকা, মাধবপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান পুষ্প কুমার কানু, মাসিক চা মজদুর পত্রিকার সম্পাদক সীতারাম বীন, চা শ্রমিক সন্তানদের সংগঠন জাগরণ যুব ফোরামের সভাপতি মোহন রবিদাসসহ স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তি বর্গ। মতবিনিময় সভায় উপস্থিত ২৩টি চা বাগানের পঞ্চায়েত কমিটির সভাপতি ও সম্পাদকরা বলেন, যে কারণে শ্রম আইন ১৩ ব্যবহার করে চা বাগান বন্ধ করা যায় সে ধরণের কোন পরিস্থিতি বিরাজ করেনি ধলই চা বাগানে।

বিশেষ সূত্রে জানতে পারলাম গত ২৩শে জনু ধলই চা বাগানের ব্যবস্থাপক রাধে শ্যাম ভরের সন্তানকে অন্যায় ভাবে মারপিট করেন এবং তার কাছ থেকে মুসলেকাও আদায় করেন তিনি। শর্ত দেন যে, আগামী এক সাপ্তাহ মধ্যে বাগান ছেড়ে ছলে যেতে হবে। তাই বাগান শ্রমিকরা ২৩শে জুন কর্মবিরতি পালন করে।
বাগানের ব্যবস্হাপকের অপসারণ দাবব করে তারা।

এর পর বিষয় টি চা শ্রমিক ইউনিয়ন পর্যায়ে ধলই চা বাগান কোম্পানীর উর্দ্ধতন কর্মকর্তাদের উপস্থিতিতে দুই দফা সমঝোতা বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। এর মধ্যে ধলই চা বাগানের কাজ কর্ম স্বাভাবিক ভাবে চলছিল। তার পর হঠাৎ করে ২৭শে জুলাই ধলই চা বাগানটি শ্রম আইনের ১৩ ধারা ব্যবহার করে কর্তৃপক্ষ অনির্দিষ্টকালের জন্য বাগানটি বন্ধ ঘোষণা করে।

এবিষয়ে উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে পরবর্তীতে আরও দুই দফা বৈঠক হলেও ধলাই চা বাগান কর্তৃপক্ষ বাগানটি খোলার কোন সিদ্ধান্ত নেয়নি । তাই বর্তমানে ধলই চা বাগানের শ্রমিকদের প্রতিদিনের মজুরি বন্ধ থাকা কারণে তারা মানবেতর জীবনযাপন করছে। তাই মনু-ধলই ভ্যালীর ২৩টি চা বাগানের পঞ্চায়েত কমিটির সভাপতি সম্পাদকদের উপস্থিতিতে এক মতবিনিময় সভায় অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত মতবিনিময় সভার অতিথি বাংলাদেশ চা শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক ও কমলগঞ্জ উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান রাম ভজন কৈরী বলেন, ধলই চা বাগান কোম্পানী যাচ্ছে চা বাগানটি বন্ধ ও শ্রমিকদের মজুরি বন্ধ রেখে শ্রমকিদেরকে আর্থিক ভাবে কষ্টে রাখতে।

শ্রমিকদের পরিবারের লোকজন দুঃখ কষ্টের বিষয়টি গুরুত্ব দিয়ে গিয়ে আজকের এই মতবিনিময় সভায় ২৩ টি চা বাগানের পঞ্চায়েত কমিটি লিডারা একত্রে সিদ্ধান্ত গ্রহন করেন যে, ২৩টি চা বাগানের শ্রমিকরা তাদের সাপ্তাহিক মজুরি থেকে ২০ টাকা করে প্রদান করবে ধলই চা বাগান শ্রমিকদেরকে। এ সিদ্ধান্তের সাথে অন্যান্য ভ্যালীর চা বাগান পঞ্চায়েতরাও ধলই চা বাগান শ্রমিকদের পাশে এসে দাড়ানো আগ্রহী প্রকাশ করেন।

এবিষয়ে উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান রাম ভজন কৈরীর সাথে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন, তাদের জোর দাবি অভিলম্বে ধলই চা বাগান খুলে দিতে ও বিতর্কিত ব্যবস্থাপক আমিনুল ইসলামকে ধলই চা বাগান থেকে অপসারণ করে নিতে হবে। তা-না হলে চা শ্রমিকরা আরও কঠোর আন্দোলন করবে।


শেয়ার..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন...

আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০৩১  

বিজ্ঞাপন

© ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | আলোর দেশ ২৪ | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি
Developed By Radwan Ahmed