1. mumin.2780@gmail.com : admin : Muminul Islam
  2. Amenulislam41@gmail.com : Amenul :
  3. rajubdmmail01@gmail.com : A Haque Raju : A Haque Raju
  4. smking63568@gmail.com : S.M Alamgir Hossain : S.M Alamgir Hossain
গোলাপগঞ্জে শ্রমিক কল্যাণের নামে অবৈধভাবে টাকা আদায় - আলোরদেশ২৪

গোলাপগঞ্জে শ্রমিক কল্যাণের নামে অবৈধভাবে টাকা আদায়

  • প্রকাশিত : মঙ্গলবার, ২০ এপ্রিল, ২০২১
  • ২৪৯ বার দেখা হয়েছে

রাসেল আহমদ (গোলাপগঞ্জ সিলেট) প্রতিনিধি।।
সরকারি কোন নির্দেশনা না থাকলেও শ্রমিক কল্যাণের নামে অবৈধভাবে গোলাপগঞ্জে ট্রাক-পিকআপ-কাভার্ডভ্যান শ্রমিক ইউনিয়নের দায়িত্বশীলরা গাড়ি আটকিয়ে তুলে থাকেন টাকা। প্রতিদিন হাজার-হাজার টাকা তোলা হয় শ্রমিকদের কল্যাণের নাম করে। অথচ অনেক শ্রমিকই এভাবে টাকা দিতে অপারগতা প্রকাশ করেন। তারপরও বিভিন্নভাবে হয়রানির অজুহাত দেখিয়ে প্রতিদিন কুপনের মাধ্যমে ৩০ টাকা করে তোলা হয় সাধারণ শ্রমিকদের কাছ থেকে।

সিলেট-জকিগঞ্জ সড়কের গোলাপগঞ্জ উপজেলায় একেক দিন একেক জায়গা থেকে ‘লাল পতাকা’ দিয়ে গাড়ির গতি রোধ করে ট্রাক-পিকআপ-কাভার্ডভ্যান আটকে এ টাকা তোলা হয়ে থাকে। তবে কার এ টাকা কার পকেটে যায়, এ নিয়েও রয়েছে প্রশ্ন। তারা বলছেন, করোনাকালীন লকডাউনে বিগত বছর অনেক পরিবহণ শ্রমিক পরিবার-পরিজন নিয়ে না খেয়ে দিন কাটিয়েছেন। তখন তো কেউ এগিয়ে আসেনি। তাহলে এসব টাকা যায় কোথায়?

সাধারণ শ্রমিকদের দাবি যত সম্ভব এ ধরণের চাঁদাবাজি বন্ধ করা হোক। প্রতিদিন সড়কের মধ্যখানে গাড়ির আটকানোর কারণে প্রায় সময় জ্যাম লেগে থাকে। যার কারণে ভোগান্তি পোহাতে হয় জনসাধারণকে।

এদিকে গত বৃহস্পতিবার (৮ এপ্রিল) সকালে লাল পতাকা হাতে নিয়ে একটি পিকআপ ভ্যান থামাতে গেলে পিকআপ ভ্যানের ধাক্কায় গুরুতর আহত হোন আলা উদ্দিন নামের এক শ্রমিক। ৫ দিন মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ে গত (১৩ এপ্রিল) মঙ্গলবার চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেন তিনি।

তবে সংশ্লিষ্টরা বলছেন, এটা কোন চাঁদাবাজি নয়। শ্রমিকদের কল্যাণের জন্য এ টাকা তোলা হয়ে থাকে। অথচ সরকারি কোন নির্দেশনা নেই। অবৈধভাবে গাড়ি আটকিয়ে এ টাকা তোলা হয়ে থাকে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, উপজেলার পৌর শহরের কদমগাছের পাশে উপ-কমিটির কার্যালয়ের পাশে, ফুলবাড়ি ইউনিয়নের এওলাটিকরে টিন দিয়ে ঘর তৈরি করে চাঁদা তোলার জন্য বসে থাকেন কয়েকজন শ্রমিক। গাড়ি আসলেই তারা লাল পতাকা হাতে বেরিয়ে গাড়ির গতি রোধ করেন। এসময় কুপনের মাধ্যমে ৩০ টাকা করে তারা চাঁদা নিয়ে থাকেন। অনেক দিতে না চাইলে তাদেরকে হুমকি দেয়া হয়ে থাকে বলে জানা যায়।

এদিকে অনেক গাড়ি চালকদেরও অভিযোগ রয়েছে এভাবে টাকা তোলা নিয়ে। তারা বলেন, বিভিন্ন সময় এখানে পতাকা নিয়ে দৌড়ে গিয়ে কয়েকজন শ্রমিক গাড়ি থামিয়ে থাকেন। যার কারণে আমরা অন্যান্য গাড়ির চালকদের অসুবিধা হয়ে থাকে।

গোলাপগঞ্জ উপজেলা উপ-কমিটির সভাপতি বদরুল ইসলাম বলেন, এটা কোন চাঁদা নয়। টাকা তোলা হয় আমাদের শ্রমিকদের সহযোগিতার জন্য। হাত ভাঙা-পা ভাঙা, বিয়ে-সাদিতে এসব টাকা দিয়ে সহযোগিতা করা হয়। আমাদেরকে জেলা থেকে দেয়া হয়েছে টাকা তোলার জন্য। কদম গাছের পাশের রাস্তার কাজ হচ্ছে। ঝামেলার কারণে আমরা এওলাটিকর দিয়েছি টাকা তোলার জন্য।

সিলেট জেলা ট্রাক-পিকআপ-কাভার্ডভ্যান শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি আবু সরকার বলেন, কুপনের মাধ্যমে শ্রমিকদের কাছ থেকে ৩০ টাকা করে তোলা হয়। এ টাকাগুলো থেকে আমাদের কোন শ্রমিক মারা গেলে পরিবারকে ২০ হাজার টাকা ও কাফনের জন্য ২ হাজার টাকা দেয়া হয়। এ টাকা তোলা অবৈধ নয়। শ্রমিকদের সহযোগিতার জন্য তাদের কাছ থেকে টাকা তোলা হয়ে থাকে।

তিনি বলেন, ‘সরকার থেকে আমাদের জন্য বিমার ব্যবস্থা করার কথা ছিলো। পরে আর বিমা হয়নি। এজন্য আমরা ৩০ টাকা করে শ্রমিকদের সহযোগিতার জন্য তুলে থাকি। আমাদের কেন্দ্রীয় নির্দেশনা আছে। আপনি চাইলে আপনাকে বই দিতে পারব।’

সিলেট জেলা শ্রমিক ইউনিয়নের সাবেক সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা সেলিম আহমদ ফলিক বলেন, ‘এ ধরণের টাকা তোলার কোন নির্দেশনা নাই। বেআইনিভাবে গাড়ি থেকে টাকা তোলা হয়। তিনি বলেন, আপনি চাইলে টাকার না তোলার নির্দেশনা বই আছে আমি আপনাকে দিতে পারব।’

শেয়ার..

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আরো সংবাদ পড়ুন...

আর্কাইভ

© ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | আলোর দেশ ২৪ | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি
Developed By Radwan Ahmed