1. mumin.2780@gmail.com : admin : Muminul Islam
  2. Amenulislam41@gmail.com : Amenul :
  3. smking63568@gmail.com : S.M Alamgir Hossain : S.M Alamgir Hossain
কমলগঞ্জে ১৯৭১ সালে ৩ এপ্রিল ৫৮ চা শ্রমিক হত্যা - আলোরদেশ২৪
সংবাদ শিরোনাম :
ঈদুল আযহা উপলক্ষে আগাম বুকিং কম চায়ের রাজ্য কমলগঞ্জে মণিপুরী সমাজ কল্যাণ সমিতির নির্বাচন ১৪ই জুন কুয়েতে ভবনে আগুন মালিকদের লোভকে দুষলেন উপ-প্রধানমন্ত্রী কমলগঞ্জে আব্দুল গফুর চৌধুরী মহিলা কলেজে বার্ষিক মিলাদ মাহফিল কমলগঞ্জে বঙ্গবন্ধু ও বঙ্গমাতা গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্ণামেন্টের সমাপনী ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান কমলগঞ্জের ভানুবিলে কৃষক প্রজা আন্দোলন কমলগঞ্জে স্মার্ট ভূমিসেবা সপ্তাহের শুভ উদ্বোধন বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ড কমলগঞ্জ উপজেলা ইউনিট এর অভিষেক কুমিল্লায় কোরবানি পশুর হাটের ইজারা নিয়ে দুই গ্রুপের সংঘর্ষ কমলগঞ্জে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় নিহত-১

কমলগঞ্জে ১৯৭১ সালে ৩ এপ্রিল ৫৮ চা শ্রমিক হত্যা

  • প্রকাশিত : রবিবার, ৩ এপ্রিল, ২০২২
  • ২৫২ বার দেখা হয়েছে

কমলগঞ্জ প্রতিনিধি।।

কমলগঞ্জে প্রেমিক যুগলের আত্মহত্যা

মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জের রহিমপুর ইউনিয়নের দেওড়াছড়া চা বাগানে একসঙ্গে ৫৮ জন নিরীহ শ্রমিককে হত্যা করা হয়। ১৯৭১ইং সালের ৩ এপ্রিল এই গণহত্যা চালানো হয়।

জানা যায় যে, দেওড়াছড়া চা বাগানের ম্যানেজার ছিলেন একজন বিহারী। ২৫শে মার্চের কিছু আগে ম্যানেজার বাগান ছেড়ে চলে যান। ২৫ শে মার্চের পর অনেক কর্মচারীও বাগান ছেড়ে নিরাপদ আশ্রয়ে চলে যান। বাগানে শুধু রয়ে যান অনাহারে অর্ধাহারে নির্জীব দেহের শ্রমিকরা। ১৯৭০ইং সালের নির্বাচনে ভোট না দেওয়ায় মৌলভীবাজারের তখনকার মুসলিম লীগ নেতা এসে তাদের তখন নিয়মিত ভয় দেখাতেন। পরে একসঙ্গে ৫৮ জন চা শ্রমিককে হত্যা করে পাকসেনারা।

৩ এপ্রিল চা বাগানে প্রবেশ করে পাক হানাদার বাহিনী ৭০ জন চা শ্রমিককে ধরে ভাইয়ের সামনে ভাই, পুত্রের সামনে পিতা, পিতার সামনে পুত্রকে বিবস্ত্র করে তাদের পরনের কাপড় দিয়ে প্রত্যেকের হাত বেঁধে এক সারিতে দাঁড় করিয়ে গুলি করে হত্যা করে। ৭০ জনের মধ্যে ১২ জন চা শ্রমিকের মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ে ভাগ্যক্রমে বেঁচে যান।

২০১৪ইং সালের ডিসেম্বর মাসে রহিমপুর ইউপি চেয়ারম্যান আওয়ামী লীগ নেতা ইফতেখার আহমেদ বদরুলের হস্তক্ষেপে ও দেওড়াছড়া চা বাগান কর্তৃপক্ষের সহযোগীতায় দেওড়াছড়া চা বাগানের বধ্যভূমির স্থান চিহ্নিত করা হয়।  ইউনিয়নের নিজস্ব অর্থায়নে এখানে একটি বধ্যভূমি নির্মাণ করা হয়।  জায়গাটিতে একটি স্থাপনা তৈরি হলেও সেটা রয়েছে অনেকটা অরক্ষিত।

কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী  কর্মকর্তা জনাব আশেকুল হক বলেন যে, বর্তমান সরকার মুক্তিযুদ্ধের গৌরবগাঁথা স্মৃতিগুলো সংরক্ষণে খুবই আন্তরিক। ২০১৫-১৬ইং অর্থবছরে দেওড়াছড়া চা বাগানে গণহত্যার স্থানকে যথাযথ সংরক্ষণের মাধ্যমে একটি স্মৃতিসৌধ নির্মাণে স্থানীয় সংসদ সদস্য ও সাবেক চিফ হুইপ আলহাজ্ব উপাধ্যক্ষ ড. মোঃ আব্দুস শহীদ এমপি মহোদয়ের সহযোগিতায় মুক্তিযুদ্ধা বিষয়ক মন্ত্রণালয়ে একটি প্রকল্প প্রেরণ করা হয়েছে। প্রকল্পটি অনুমোদনের অপেক্ষায়।

শেয়ার..

আরো সংবাদ পড়ুন...
© ২০২৩ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | আলোর দেশ ২৪ | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি
Developed By Radwan Ahmed