1. mumin.2780@gmail.com : admin : Muminul Islam
  2. Amenulislam41@gmail.com : Amenul :
  3. smking63568@gmail.com : S.M Alamgir Hossain : S.M Alamgir Hossain
খুলনায় তরমুজের বাম্পার ফলন - আলোরদেশ২৪

খুলনায় তরমুজের বাম্পার ফলন

  • প্রকাশিত : শুক্রবার, ১০ মার্চ, ২০২৩
  • ১৬৩ বার দেখা হয়েছে



অনলাইন ডেস্ক নিউজ::
তাহিরপুরে জাতীয় দুর্যোগ প্রস্তুতি দিবস পালিত
হাতেগোনা মাত্র কয়েক বছর আগে বটিয়াঘাটা এলাকার কৃষক প্রফুল্ল মন্ডলের মাত্র দশ বিঘা জমিতে স্থানীয় কৃষি কর্মকর্তাদের উদ্যোগে শুরু হয় তরমুজ চাষের সূত্র।

আর তারই সূত্র ধরে আজ প্রায় ১৫ হাজার হেক্টর জমিতে বিস্তার করছে তরমুজের চাষ।
দেশের দক্ষিণাঞ্চল খুলনা জেলার দাকোপ চালনা বটিয়াঘাটা ডুমুরিয়া ফুলতলা বিস্তীর্ণ এলাকার মাঠ জুড়ে প্রায় ১৪ থেকে ১৫ হাজার হেক্টর জমিতে সবুজ পাতার ফাঁকে উকি দিচ্ছে কৃষকদের উজ্জল সম্ভাবনার স্বপ্ন তরমুজ।
তবে তরমুজের বীজ কীটনাশক সার ও ডিজেলের দাম বৃদ্ধির কারণে হিমশিম খেলে ও পিছিয়ে নাই চাষীরা।

তরমুজ ফলনের তাগিদে কাঠফাটা রোদের প্রখর তাপাদাহ সহ্য করে এবং গত বছরের বড় আকারে লুকসানের ক্ষত ভুলে গিয়ে এগিয়ে যাচ্ছে আগামীর দিনের উজ্জল সম্ভাবনার দিকে।

স্থানীয় কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন এই এলাকা জুড়ে বেশ কয়েক বছর ধরে প্রায় ১৪ থেকে ১৫ হাজার হেক্টর জমিতে তরমুজ চাষের মাধ্যমে সাবলম্বী এলাকার তরমুজ চাষিরা। এখানকার উৎপাদিত তরমুজ বিক্রি করে প্রতিবছর কৃষকদের ঘরে উঠছে প্রায় ১ হাজার থেকে ১১ শ’ কোটি টাকা। এতে সরকারের রাজস্ব খাতেও অর্জন হচ্ছে মুনাফা। পাশাপাশি সারাদেশের মানুষের তরমুজ চাহিদার একটি বিশেষ অংশ খুলনা দাকোপ চালনা কয়রা বটিয়াঘাটা ডুমুরিয়া ফুলতলা এলাকার কৃষকরা তরমুজ উৎপাদনের মাধ্যমে সরবরাহ করতে সক্ষম হচ্ছে।

যার কারণে ক্রমান্বয়ে এ সকল এলাকার কৃষকদের মাঝে তরমুজ চাষের আগ্রহ বেড়েচলেছে ।

তাছাড়া এখানকার অনেক পতিত জমিও কাজে লাগিয়ে তরমুজ চাষে আগ্রহী হয়ে অর্থ উপার্জন করছে তরমুজ চাষের মাধ্যমে এলাকার কৃষকরা।

উল্লেখিত এলাকা জুড়ে আরো দুই আড়াই মাস আগে থেকেই জমি প্রস্তুত থেকে শুরু করে তরমুজ চাষের কাজে ব্যস্ত সময় পার করছে এলাকার কৃষি পরিবারের নারীসহ শিশু বয়স্ক সকল শ্রেণীর মানুষেরা ।

কয়রা এলাকার তরমুজ চাষী অমীয় বিশ্বাস বলেন আমাদের এলাকাটা উপকূলীয় এলাকা হওয়াতে সারা বছর দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়া ভাঙ্গন জলোচ্ছাস ঝড়ের কবলে-কবলিত আমরা।

সেই ক্ষেত্রে বছরের এই দুই তিনটা মাসে আবহাওয়া অনুকূলে থাকার কারণে তরমুজ চাষের উপযোগী সময় বলে মনে করে এবং স্থানীয় কৃষি কর্মকর্তাদের সহযোগিতায় আমরা বর্তমানে অসংখ্য পতিত জমিতে ও তরমুজ চাষ করার জন্য আগ্রহী।

কারন তরমুজ আমাদের কাছে এখন অল্প সময়ে লাভজনক সোনালী সম্ভাবনার ফসল।
কৃষক অমিও আরো বলেন গত বছর আমাদের এখানকার তরমুজের ফলন যথেষ্ট পরিমাণে ভালো হয়েছিল।

কিন্তু বাজারে দেশের বিভিন্ন স্থানের বহিরাগত খরিদ্দার না থাকার কারণে আমাদের লুকসান গুনতে হয়েছে। এমন কি মাঠের তরমুজ মাঠে থেকেই পচে নষ্ট হয়েছে।

সে ক্ষেত্রে এ বছর আমরা আগাম ১৫ দিন থেকে ২০ দিন আগেই তরমুজ চাষাবাদের কাজে নেমে পড়েছি।

যাতে আগাম ফসল উঠিয়ে বিক্রি করে মুনাফা অর্জন করতে পারি।

তবে এবার তরমুজের ফলন দেখে মনে হচ্ছে গত অন্যান্য বছরের তুলনায় লক্ষ্যমাত্রা ভেদ করে ফসল যথেষ্ট ভালো উৎপাদন হওয়ার সম্ভাবনা উকি দিচ্ছে।

এদিকে স্থানীয় কৃষির সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা উৎপল রায় বলেছেন এবছর লক্ষ্যমাত্রা অনুযায়ী তরমুজের ফলন বেশ ভালো হয়েছে তাছাড়া আগামী কয়েক দিন পর রমজান মাস শুরু।
আর রমজান মাস উপলক্ষে তরমুজের চাহিদা বাজারে যথেষ্ট পরিমাণে থাকবে।

এতে করে বাজার দরও কৃষকরা যথেষ্ট ভালো পাবে।

সে ক্ষেত্রে কৃষকদের পরিশ্রম আর তরমুজের বীজ সার কীটনাশক ডিজেলের দাম বেশি হলেও আগাম বাজারে ক্রেতাদের চাহিদা অনুযায়ী সরবরাহ করতে পারলে ও পরিবহন ব্যবস্থা যথাযথ থাকলে কৃষকদের লক্ষ্যমাত্রা থেকেও দ্বিগুণ মুনাফা ঘরে তুলতে পারবে বলে তিনি মনে করেন।

শেয়ার..

আরো সংবাদ পড়ুন...
© ২০২৩ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | আলোর দেশ ২৪ | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি
Developed By Radwan Ahmed